সুদেষ্ণা মন্ডল :: কাকদ্বীপ :: মধুসূদনপুর :: সুন্দরবন :: সংবাদ প্রবাহ ::  সংসারের হাল ফেরাতে গভীর সমুদ্রে পাড়ি দিত কাকদ্বীপের হারুড পয়েন্ট কোস্টাল থানার ৩ নম্বর মধুসূদনপুরের খান পাড়ার মৎস্যজীবি ইয়াসিন শেখ। ইয়াসিন (২৯) নামখানা বিশ্ব জয় ৩ নামে একটি ট্রলারে কর্মী। প্রতিদিনের মতনই গত বুধবার ২৭জুলাই বাড়ি ট্রলারে যাওয়ার উদ্দেশ্যে বেরিয়েছিল। তারপর থেকে রহস্যজনকভাবে নিখোঁজ হয়ে যায় ইয়াসিন। পরিবারের লোকজনেরা হারুড পয়েন্ট কোস্টাল থানা নিখোঁজের অভিযোগ দায়ের করে। এরপর কেটে গিয়েছে ১১ দিন। ১১ দিন পর ইয়াসিনের সন্ধান পায় পরিবারে লোক জনেরা। একটি ফেসবুক পোস্ট কে ঘিরে চাঞ্চল্য ছড়ায় এলাকায়। ইয়াসিনের মৃতদের ছবি দিয়ে একটি ফেসবুক পোস্ট করা হয় যে এই মৃতদেহটি হাওড়া ডোমজুড় এর হসপাতলে রয়েছে। কাকদ্বীপের মৎস্যজীবী মৃতদেহ কিভাবে হাওড়ার ডোমজুড়ে পাওয়া যায় তা নিয়ে ঘনীভূত হয়েছে রহস্য। পরিবার সূত্রে দাবি,যে ইয়াসিনকে খুন করা হয়েছে।

ইয়াসিনের স্ত্রী দাবি করে, প্রায় সময় ভাগ বাটোয়ারা নিয়ে মাঝির সঙ্গে ব্রতসা লেগে থাকত ইয়াসিনের। আগেও বেশ কয়েকবার ইয়াসিনকে প্রাণে মারার চক্রান্ত করেছিল ওই মাঝি। ইতিমধ্যে পরিবারের তরফ থেকে হারুড পয়েন্ট থানায় অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে।

পরিবারের অভিযোগের ভিত্তিতে তদন্ত শুরু করেছে পুলিশ। পরিবারের দাবি এই ঘটনার সঙ্গে যারা যারা জড়িত আছে তাদেরকে পুলিশ গ্রেফতার করে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দিক। ইয়াসিনের এক ছেলে এক মেয়ে পরিবারের একমাত্র রোজগের একে হারিয়ে দিশাহারা পরিবার।