নিউজ ডেস্ক :: সংবাদ প্রবাহ :: নয়াদিল্লি :: উত্তরাখন্ডে তিন দিন ধরে ভারী বৃষ্টিতে সৃষ্ট বন্যায় অন্তত ১৬ জন নিহত হয়েছেন। গতকাল সোমবার থেকে আজ মঙ্গলবার পর্যন্ত এসব মৃত্যুর ঘটনা ঘটে। এদিকে বন্যাকবলিত এলাকায় ধ্বংসস্তূপের নিচে আটকা পড়ে নিহতের সংখ্যা আরও বাড়তে পারে বলে আশঙ্কা করছে স্থানীয় কর্তৃপক্ষ।

মুখ্যমন্ত্রী পুষ্কর সিং দামি এএনআইকে বলেন, প্রধানমন্ত্রী ও স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীকে এখানকার পরিস্থিতি সম্পর্কে জানানো হয়েছে। এ ঘটনায় অন্তত ১৬ জনের মৃত্যু হয়েছে। উদ্ধার তৎপরতায় সেনাবাহিনীর তিনটি হেলিকপ্টার মোতায়েন করা হয়েছে।

মুখ্যমন্ত্রী রাজ্যের শিক্ষামন্ত্রী দান সিং রাওত ও পুলিশপ্রধানকে সঙ্গে নিয়ে হেলিকপ্টারে করে ক্ষতিগ্রস্ত এলাকা পরিদর্শন করেন। পরিদর্শন শেষে তিনি সাংবাদিকদের জানিয়েছেন, বন্যায় কৃষকদের শস্যখেত বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। তবে আবহাওয়া অধিদপ্তরের পূর্বাভাসে কিছু স্বস্তির খবরও মিলেছে আজ। তারা জানিয়েছে, কিছু কিছু জায়গায় ভারী বৃষ্টিপাত ছাড়া উল্লেখযোগ্যভাবে বৃষ্টিপাতের পরিমাণ কমে যাবে। ভারী বৃষ্টিতে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে পাহাড়ি এলাকাগুলো।

বিভিন্ন ছবিতে দেখা গেছে, সেখানকার রাস্তাঘাট এবং বাড়িঘর তলিয়ে গেছে। সেতুগুলো ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে এবং বৃষ্টিতে নদ-নদীর জল উপচে দুকূল ভেসেছে। বৃষ্টির কারণে ভূমিধসে পর্যটন এলাকা নাইনিতালে যাওয়ার সড়ক যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়েছে। এদিকে ভূমিধসে কালাডুঙ্গি, হালদাওয়ানি এবং বাওয়ালির সঙ্গে সড়ক যোগাযোগও বন্ধ হয়ে গেছে।