সুদেষ্ণা মন্ডল :: সংবাদ প্রবাহ :: জয়নগর :: দক্ষিণ ২৪ পরগনার জয়নগর থানার অন্তর্গত শ্রীপুর অঞ্চলের কাশিমপুর গ্রামে লক্ষী পূজার দিন সকাল থেকে এক অপরিচিত বৃদ্ধাকে ঘোরা ঘুরি করতে দেখে এলাকার মানুষ।এরপর স্থানীয় “আমরা সবাই ক্লাবের ” সদস্যরা ঐ বৃদ্ধাকে ক্লাবে বসিয়ে দুপুরের খাওয়া দাওয়ার ব্যবস্থা করে । এরপর ঐ বৃদ্ধার পরিচয় জানার জন্য জিজ্ঞাসা বাদ করতে থাকে তারা।

কিন্তু বৃদ্ধার কাছ থেকে কোন উত্তর না পেয়ে অবশেষে কাগজ পেন তার হাতে তুলে দিলে তিনি সেই কাগজে তার নাম ঠিকানা লিখে দেন। তার লেখা পড়ে জানা যায়,তার নাম দ্রৌপদী প্রামানিক,স্বামী মদন মোহন প্রামানিক,বাড়ী বাঁকুড়া জেলার তালডাঙা থানার ধুমাপাড়া গ্রামে। এরপর ক্লাব সদস্যরা ঐ বৃদ্ধার বিষয়ে সমস্ত ঘটনা জয়নগর থানাকে জানায়।

ঘটনার খবর পেয়ে জয়নগর থানার পুলিশ বৃদ্ধাকে উদ্ধার করে নিয়ে আসে। এরপর জয়নগর থানার আই.সি অতনু সাঁতরা বৃদ্ধার সাথে দীর্ঘক্ষণ কথা বলেন। এরপর কাগজ পেন দেন ওনার কাছে । তার লেখা ঠিকানা অনুযায়ী জানা যায় নিমতা থানার অন্তর্গত বিরাটি সরদার পাড়ার বাসিন্দা । মেয়ের নাম উমা মণ্ডল । এরপর দ্রুত উমার সাথে যোগাযোগ করে গোটা বিষয়টি জানানো হয়।

খবর পেয়ে শুক্রবার নিমতা থেকে জয়নগর থানায় দৌড়ে আসে বৃদ্ধার মেয়ে ও নাতনি। উমা জানায় ২০১৫ সালের সেপ্টেম্বর মাসে হটাৎ তার মা নিখোঁজ হয়ে যায় । তারপর থেকে অনেক চেষ্টা করেও কোন সন্ধান মেলেনি । এভাবে এত বছর পর মাকে খুঁজে খুশির বাঁধ ভাঙে পরিবারের।মাকে নিজেদের কাছে ফিরে খুশি হওয়ার পাশাপাশি ধন্যবাদ জানাতে ভোলেনি জয়নগর থানা ও কাশিমপুরের ক্লাবের সকল সদস্যকে