নিজস্ব সংবাদদাতা :: সংবাদ প্রবাহ :: বাঁকুড়া :: জয়পুররের গভীরে জঙ্গলে মধ্যে বিচরণ করে গরু ,ছাগল,ও মহিষ, আর এই সব গৃহ পালিত পশু জঙ্গলে হারিয়ে না যায় , যাতে সহজেই খুঁজেবের করা যায় সেজন্য তাদের গলাতে বেঁধে দেয়া হয় বিশেষ-এক ধরনের বাদ্য যন্ত্র। আদিবাসী সমাজের মানুষ- জন এই বাদ্যযন্ত্রের নাম দিয়েছেন “ঠরকা” |সকাল হলেই বাঁকুড়া জঙ্গল মহল এলাকায় এই ঠরকা গরু ,মহিষ,ছাগলের গলাতে বেঁধে ছেড়ে দেন তারা গোয়ালঘর থেকে। আর তারা চরতে চরতে চলে যায় গভীর শাল,মহুয়ার জঙ্গলে ।

মূলত বাঁশ, স্টিলের গ্লাস,এ্যলুমিনিয়াম ও কাঠ দিয়ে এই “ঠরকা” তৈরি করা হয়ে থাকে, কিন্তু জয়পুরের আদিবাসী এলাকার মানুষজন বাঁশ দিয়ে তৈরি করেছেন এই “ঠরকা।

বাঁকুড়ার এই জঙ্গল মহলে রয়েছে হাতির যাতায়াত। তাই কিছু সংখ্যক মানুষজন অবশ্য হাতির আক্রমণের হাত থেকে বাঁচার জন্যও – ব্যাবহার করছেন এই “ঠরকা”। তারা এই আওয়াজ শুনে সহজেই বুঝতে পারেন এটা হাতির আওয়াজ নয়, গরু ,মহিষ,ছাগল চড়ছে তাঁদের আওয়াজ, তাই সহজেই খুঁজে বের করে নেন তাদের গৃহ পালিত পশুদের।