দরিদ্র বিধবার মেয়ের বিয়ের জন্য সাহায্যের হাত বাড়ালেন প্রাথমিক শিক্ষক

কুমার মাধব :: সংবাদ প্রবাহ ::মালদা :: দরিদ্র বিধবার মেয়ের বিয়ের জন্য সাহায্যের হাত বাড়ালেন এলাকার প্রাথমিক শিক্ষক তথা তৃণমূল নেতা বুলবুল খান। মেয়ের বিয়ের চিন্তায় হতাশ হয়ে পড়েছিলেন দরিদ্র বিধবা রুবেদা বিবি। সেই বিধবা ত্রতা হয়ে দাঁড়ালেন শিক্ষক নেতা বুলবুল। এর আগেও বিভিন্ন সামাজিক কাজে বুলবুল বাবুকে দেখা গিয়েছে।

এবারও তার ব্যতিক্রম হল না। উল্লেখ্য রুবেদা বেওয়ার বিয়ে হয়েছিলো মালদহের হরিশ্চদ্রপুর ১ নম্বর ব্লকের রামপুর গ্রামে। সংসার করার ৭ বছর পর স্বামী অসনুল হক মারা যায়। কিছু দিন পর রুবেদা বেওয়া তার এক ছেলে ও এক মেয়েকে নিয়ে হরিশ্চদ্রপুর ১ নাম্বার ব্লকের মহেন্দ্রপুর গ্রাম পঞ্চায়তের বাংরুয়াতে বাবার বাড়িতে থাকতে শুরু করেন।মেয়ের নাম আসমিনা খাতুন ও ছেলের নাম রহিম আলী। রুবেদা বেওয়া দিনমজুর কাজ এবং ধানের সময় ধান কেটে কোনমত সংসার চালাতেন।

পরিবারে অভাবের তাড়নায় রুবেদা ছেলে ও মেয়েকে বেশিদূর পড়াতে পারেননি। বর্তমানে তিনি এক ছেলে ও এক মেয়েকে নিয়ে বাবার বাড়িতেই থাকেন,নিজস্ব বাড়ি নেই। এরই মধ্যে হঠাৎ করে মেয়ের বিয়ে ঠিক হয়ে যাবে চিন্তায় পড়ে। বিয়ের জন্য অর্থ যোগান হবে কি করে এই চিন্তাতে দিন কাটছিল তার।

এরই মধ্যে হরিশ্চন্দ্রপুর ২ নম্বর ব্লক এলাকার দক্ষিণ মুকুন্দপুর প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষক বুলবুল খান এই খবর পেয়ে ছুটে আসেন বৃদ্ধার বাড়িতে। আর্থিক সহ অন্যান্য সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দেন এবং ভবিষ্যতে এ সময় আরো কিছু সাহায্যের আশ্বাস দেন তিনি। বারিকুল বাবুর কাছ থেকে সাহায্যের আশ্বাস পেয়ে হাসি ফুটেছে দরিদ্র বিধবার মুখে।

এ প্রসঙ্গে শিক্ষক নেতা বুলবুল খান জানান আমি এই দরিদ্র বিধবা মহিলার মেয়ের বিয়ের খবরটি শুনতে পেয়েছিলাম। উনি অর্থের জন্য বিয়ের প্রস্তুতি করতে পারছিলেন না। আজকে আমি আমার তরফ থেকে যথা সম্ভব সাহায্য করলাম।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *