উদয় ঘোষ :: সংবাদ প্রবাহ :: বর্ধমান :: গত শুত্রুবার কাকভোরে কলকাতা থেকে মুর্শিদাবাদ ফেরার পথে বর্ধমানের কামনাড়ায় একটি ডাম্পারের সঙ্গে একটি চার চাকা গাড়ির মর্মান্তিক পথ দুর্ঘটনায় মৃত্যু হয়েছিল একই পরিবারের পাঁচজনের। মৃতদের মধ্যে দুই শিশু, দুই মহিলা ও একজন পুরুষ ছিলেন। গুরুতর আহত হয়ে বর্ধমান মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসার জন্য ভর্তি হয়েছিল আরো ৭জন যাত্রী।

আর এরপর সোমবার সেই দুর্ঘটনায় জখম আরো এক শিশুর বর্ধমান মেডিকেলে মৃত্যু ঘটেছে। হাসপাতাল সূত্রে জানা গেছে, শিশুটির নাম সোহেল মল্লিক(৮)। শিশুটির মাথার পিছনে চোট ছিল বলে জানা গেছে। হাসপাতাল সূত্রে জানা গেছে, বর্ধমান মেডিকেলের শিশু বিভাগের নিউনেটাল ইনটেনসিভ কেয়ার ইউনিটে শিশুটির চিকিৎসা চলছিল। শিশুটি একই পরিবারের বলেই জানা গেছে। মৃত সাত জনের বাড়ি মুর্শিদাবাদের বড়ঞা থানার সোদপাড়া এলাকায় বলে পুলিশ সূত্রে জানা গেছে।

উল্লেখ্য গত শুত্রুবার একটি চারচাকা করে এগারো জন যাত্রী কলকাতা বিমান বন্দর থেকে মুর্শিদাবাদ ফিরছিলেন বর্ধমানের উপর দিয়ে। ভোরবেলায় বর্ধমান কাটোয়া রোডের কামনাড়া এলাকায় তাদের গাড়িটি একটি ডাম্পারে ধাক্কা মারে। গাড়ির প্রত্যেকেই গুরুতর আহত হয়। সকলকে উদ্ধার করে বর্ধমান মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে আসা হলে এদের মধ্যে পাঁচজনকে মৃত ঘোষণা করেন চিকিৎসক। বাকিদের আহত অবস্থায় বর্ধমান মেডিক্যালে ভর্তি করা হলে পরে এদের মধ্যে ছয়জনকে কলকাতায় রেফার করা হয়।