বারুইপুরে এলাকার প্রার্থী চেয়ে রবিবার রাতে ১৭ নং ওয়ার্ডের বিভিন্ন এলাকায় ফেস্টুন টাঙাল ওই ওয়ার্ডের বিক্ষুব্ধ তৃণমূল কর্মীরা।

সুদেষ্ণা মন্ডল :: সংবাদ প্রবাহ :: বারুইপুর :: পুরসভা নির্বাচন প্রায় দোরগোড়ায়। তার আগেই বারুইপুর পুরসভা এলাকায় নির্বাচনের দামামা বেজে গেল। পুর ভোটে এবার ১৭ নম্বর ওয়ার্ডে এলাকার প্রার্থী চেয়ে রবিবার রাতে ওয়ার্ডের বিভিন্ন এলাকায় ফেস্টুন টাঙাল ওই ওয়ার্ডের বিক্ষুব্ধ তৃণমূল কর্মীরা।

ফেস্টুনে দাবি উঠল ১৭ নম্বর ওয়ার্ডে বহিরাগত প্রার্থীকে মানছি না, মানবো না। এমনকী, ফেস্টুনে এও দেখা গেল ১৭ নম্বর ওয়ার্ডে বয়স্ক ও অসুস্থ বহিরাগত প্রার্থী চাই না। এবার এলাকার প্রার্থীকেই চাই।

এই ঘটনাকে ঘিরে এলাকায় শোরগোল পড়ে গিয়েছে। প্রসঙ্গত, ১৭ নম্বর ওয়ার্ডের পুরপিতা বর্তমানে পুরপ্রশাসক শক্তি রায়চৌধুরী। এই প্রসঙ্গেই শক্তিবাবু বলেন, বিরোধী দলের চক্রান্তে ১৭ নম্বর ওয়ার্ডের মানুষ বিভ্রান্ত হচ্ছেন না। ১৭ নম্বর ওয়ার্ডের মানুষ যাকে ঠিক করবে তাঁকেই দল সবকিছু দেখে প্রার্থী করবে।

তবে যারা ফেস্টুন টাঙাচ্ছে তারা ওয়ার্ডের লোক কিনা আমার সন্দেহ আছে। পরিষেবা মানুষ কি পেয়েছে তা ওই ওয়ার্ড ঘুরলেই পরিষ্কার হবে। মানুষই জবাব দেবে।

পুরসভার ১৭ টি ওয়ার্ড। ১৭ নম্বর ওয়ার্ড থেকেই টানা তিনবার নির্বাচিত হয়েছিলেন পুরপ্রশাসক শক্তি রায়চৌধুরী। তিনি ১০ নম্বর ওয়ার্ডের বাসিন্দা। এদিন ১৭ নম্বর ওয়ার্ডের বিক্ষুব্ধ তৃণমূল কর্মীরা জিবোস কলোনি মোড়, নজরুল সরণী মোড় এলাকায় মিছিল করে গিয়ে ফেস্টুন টাঙিয়ে দেন।

১৭ নম্বর ওয়ার্ড কমিটির সম্পাদক বিমলেন্দু ঘোষ বলেন, নজরুল সরণী এলাকায় জল জমলে পুরপ্রশাসক তথা পুরপিতা শক্তিবাবুর কাছে গেলে উনি বলেন এই ওয়ার্ডে তিনি আর দাঁড়াবেন না।

তাই আমরা সিদ্ধান্ত নিয়েছি এলাকার লোককে প্রার্থী করতে হবে। যে কোনও কাজের জন্য শক্তিবাবুর বাড়ি ছুটতে হয়। তাঁকে এলাকায় পাওয়া যায় না। আমরা বিধায়ক বিমান বন্দ্যোপাধ্যায়কেও এই বিষয়ে জানিয়েছি। তৃণমূল কর্মী তপন মণ্ডল বলেন, এই ওয়ার্ডের পুরপিতা শক্তিবাবু নিজেই জানিয়েছিলেন উনি দাঁড়াবেন না।

উনি অসুস্থ। ওনার কাছ থেকে পরিষেবা ঠিকমত পাওয়া যায় না। তাই কোনও বহিরাগত নয়, এলাকার প্রার্থীকেই এবার প্রার্থী করতে হবে। এই দাবি নিয়েই ফেস্টুন টাঙানো হয়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

1 × 4 =