সন্দীপ প্রামানিক :: ২৪ ঘন্টা লাইভ :: ২১শে জানুয়ারি ::কোলকাতা :: পশ্চিমবঙ্গে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ ও মৃত্যুর হার এখন নিম্নমুখী। এতে স্বস্তি ফিরছে রাজ্যবাসীর মনে। রাজ্য স্বাস্থ্য দপ্তর গতকাল মঙ্গলবার বলেছে, এ রাজ্যে করোনাভাইরাসের দ্বিতীয় ঢেউ আসার সম্ভাবনা কম। রাজ্যের অর্ধেক করোনা হাসপাতাল এখন রোগীশূন্য।

রাজ্য স্বাস্থ্য দপ্তর সূত্রে বলা হয়েছে, রাজ্যের ১০১টি করোনা হাসপাতালের প্রায় অর্ধেক শয্যায় এখন করোনা রোগীশূন্য। ২৭টি হাসপাতালে এখন ভর্তি রয়েছেন এক থেকে পাঁচজন রোগী। সব মিলিয়ে রাজ্যের করোনা হাসপাতালের ৭০ শতাংশ শয্যা এখন খালি। পশ্চিমবঙ্গের স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডা. অজয় চক্রবর্তী বলেন, এখন রাজ্যের বিভিন্ন করোনা হাসপাতালের অর্ধেকের বেশি শয্যা খালি।পশ্চিমবঙ্গের ১০১টি করোনা হাসপাতালে রয়েছে ১২ হাজার ৪৪০টি শয্যা। ১৭ জানুয়ারি পর্যন্ত পাওয়া হিসাবে বলা হয়, এই রাজ্যের করোনা শয্যা খালি রয়েছে ১১ হাজার ৪৮৭টি। কলকাতা এবং উত্তর ও দক্ষিণ ২৪ পরগনা জেলার ৬৩টি বেসরকারি করোনা হাসপাতালে রয়েছে ৩ হাজার ৬৩টি করোনা শয্যা। এর ৭০ শতাংশ শয্যাই এখন খালি। সব মিলিয়ে ৪৮টি করোনা হাসপাতালের শয্যায় একজনও রোগী নেই।

এটা দেখা গেছে, কলকাতার নিউ টাউন রাজারহাটের চিত্তরঞ্জন ন্যাশনাল ক্যানসার ইনস্টিটিউটে ৪২৫টি করোনা শয্যার ব্যবস্থা করা হলেও এখন ৪১০টি শয্যাই ফাঁকা। তেমনি কলকাতার জোকার ইএসআই হাসপাতালের ৪৭০টি শয্যার মধ্যে ৪৬৩টি ফাঁকা। ব্যান্ডেলের ইএসআই হাসপাতালের ২৫০টি শয্যার মধ্যে ২৪২টি ফাঁকা।

উলবেড়িয়ার ইএসআই হাসপাতালের ২১৬টি শয্যায় এখন রয়েছেন মাত্র দুজন রোগী। মালদার ট্রমা সেন্টারের ১৫০টি শয্যার মধ্যে এখন রোগী রয়েছেন মাত্র তিনজন। হাওড়ার ওল্ড মাতৃসদনে ৩০০টি শয্যার মধ্যে এখন রোগী চারজন।

এদিকে স্বাস্থ্য দপ্তর সূত্রে আরও বলা হয়েছে, উত্তর ২৪ পরগনার ১৩টি হাসপাতালের মধ্যে এখন রোগীশূন্য ৫টি, দক্ষিণ ২৪ পরগনার ৮টির মধ্যে রোগীশূন্য ৫টি, দার্জিলিংয়ের ৫টির মধ্যে রোগীশূন্য ৩টি, হুগলির ৮টির মধ্যে ৩টি, পশ্চিম মেদিনীপুরের ৯টির মধ্যে ৭টি, পূর্ব মেদিনীপুরের ৬টির মধ্যে ২টি, পশ্চিম বর্ধমানের ২টির মধ্যে ১টি, বাঁকুড়ার ২টির মধ্যে ১টি, পুরুলিয়ার ৩টির মধ্যে ২টি, মুর্শিদাবাদের ৬টির মধ্যে ৪টি, মালদহের ৩টির মধ্যে ২টি, জলপাইগুড়ির ২টির মধ্যে ১টি, ঝাড়গ্রামের ২টির মধ্যে ১টি এবং দার্জিলিংয়ের ৫টি হাসপাতালের মধ্যে এখন ৩টি রোগীশূন্য।

 

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here