মঙ্গলকোটে কীটনাশক খেয়ে এক ভাগচাষি আত্মঘাতী

উদয় ঘোষ :: সংবাদ প্রবাহ :: বর্ধমান :: মঙ্গলকোট থানার উজিলপুরে কীটনাশক খেয়ে এক ভাগচাষি আত্মঘাতী হয়েছেন। মৃতের নাম বুদন হাঁসদা (৩৫)। দিনকয়েক আগে জমিতে গিয়ে তিনি কীটনাশক খান। তিনি অচৈতন্য অবস্থায় জমিতে পড়েছিলেন। স্থানীয় বাসিন্দারা উদ্ধার করে তাঁকে বর্ধমান মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে আসেন।

বুধবার সকালে তিনি মারা যান। ঘটনার বিষয়ে একটি অস্বাভাবিক মৃত্যুর মামলা রুজু করে তদন্ত শুরু করেছে বর্ধমান থানার পুলিস। চাষে লোকসানের কারণে তিনি আত্মঘাতী হয়েছেন বলে পরিবারের দাবি। যদিও তা মানতে নারাজ পুলিস। তাঁর আত্মহত্যার পিছনে পারিবারিক অশান্তি রয়েছে বলে প্রাথমিকভাবে পুলিসের অনুমান।

পরিবার সূত্রে জানা গিয়েছে, তাঁর দুই ছেলে। ছেলেরা চাষের কাজ করেন। বুদন ভাগচাষ করেন। এবার ৭ বিঘা জমিতে তিনি স্বর্ণ ধান চাষ করেছিলেন। চাষের জন্য মহাজনের কাছ থেকে ঋণ নিয়েছিলেন তিনি। শোষক পোকার আক্রমণে ধান নষ্ট হয়ে গিয়েছে। একদিকে ধান নষ্ট হওয়ায় চাষে লোকসানের চিন্তা, অন্যদিকে দেনা শোধের দুশ্চিন্তায় মিলিয়ে মানসিকভাবে ভেঙে পড়ে তিনি আত্মঘাতী হন।

মৃতের ছেলে প্রদীপ হাঁসদা বলেন, বাবা চাষের জন্য টাকা ধার করেছিলেন। শোষক পোকার আক্রমণে ধান নষ্ট হয়ে গিয়েছে। চাষে লোকসান ও দেনা শোধের দুশ্চিন্তার কারণে বাবা আত্মঘাতী হয়েছেন। প্রতিবেশী ভাগচাষি সুশীল হেমব্রম বলেন, আমাদের এলাকায় শোষক পোকার আক্রমণে বহু জমির ধান ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। আমি এবার ১০ বিঘা জমিতে ভাগচাষ করেছিলাম। আমার জমির ধানও নষ্ট হয়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *