নিউজ ডেস্ক :: সংবাদ প্রবাহ :: কোলকাতা :: মনোহরপুকুরের পুষ্পক অ্যাপার্টমেন্ট থেকে শনিবার সন্ধেয় ১০০ ডায়ালে একটি ফোন পায় পুলিশ। তড়িঘড়ি রবীন্দ্র সরোবর থানার পুলিশ ঘটনাস্থলে যায়। ওই আবাসন থেকে প্রিয়াঙ্কা বাজাজের দেহ উদ্ধার করা হয়। অরবিন্দ এবং প্রিয়াঙ্কার সন্তান আদ্ভিকাকে রক্তাক্ত অবস্থায় উদ্ধার করে এসএসকেএম হাসপাতালে ভরতি করা হয়। প্রথমে আটক করা হয় অরবিন্দকে।

টানা জেরায় ভেঙে পড়ে। স্বীকার করে খুনের কথা। স্ত্রীকে কেন খুন করল, পুলিশি জেরায় তা জানায় অরবিন্দ। সে জানায়, স্ত্রী প্রিয়াঙ্কা দমিয়ে রাখতেন। বেসরকারি সংস্থা কর্মী অরবিন্দ ২০২০ সালে চাকরি হারায়। শ্বশুরের সিমেন্টের ব্যবসায় যোগ দেয়। চাকরি চলে যাওয়ার পর থেকে শ্বশুর গোটা পরিবারকে নিয়ন্ত্রণ করতে শুরু করে। তা দিন দিন অসহ্য হয়ে উঠছিল। মানসিক অবসাদে ভুগছিল অরবিন্দ।

দিনকয়েক আগে অরবিন্দ তাঁর আত্মীয়দের ই-মেল এবং হোয়াটসঅ্যাপের মাধ্যমে স্ত্রীর সঙ্গে অশান্তির কথা জানায়। স্ত্রীকে বোঝানোর জন্য অনুরোধ জানায়। ইতিমধ্যেই শনিবার সন্ধেয় দীপাবলিতে পুজোর জন্য আলমারি থেকে বাসন বের করা নিয়ে স্ত্রীর সঙ্গে বচসায় জড়িয়ে পড়ে অরবিন্দ। আলমারির চাবি দিতে পারেননি প্রিয়াঙ্কা। দাবি করেন তাঁর কাছে নেই।

সঙ্গে সঙ্গে শ্বশুরকে ফোন করে অরবিন্দ। তিনি জানান, এক বন্ধুর কাছে চাবি আছে। তাতেই রেগে যায় অরবিন্দ। প্রিয়াঙ্কার সঙ্গে ঝগড়ার মাঝে প্রায় দৌড়ে রান্নাঘরে চলে যায় সে। রান্নাবান্নায় ব্যবহৃত ছুরি নিয়ে এসে স্ত্রীকে এলোপাথাড়ি কোপাতে থাকে। তা দেখে ফেলেন বছর আঠারোর মেয়ে আদ্ভিকা। উত্তেজনার বশে মেয়েকে আক্রমণ করে অরবিন্দ। মেয়ে ১০০ ডায়ালে ফোন করার পর পুলিশ আসে। তখনই পুলিশ তাকে আটক করে।

ছবি ও সংবাদ সূত্র :: সংবাদ প্রতিদিন