দেবেন মাহাতো :: সংবাদ প্রবাহ :: ঝাড়গ্রাম :: ঝাড়গ্রাম জেলার সাকরাইল ব্লকের রাঙাডিহা গ্রামের মেয়ে মমতা হাঁসদা এবার সিনিয়ার মহিলা ফুটবল টিমে সুযোগ পেয়েছে। ইন্টার ন্যাশেনাল টুর্নামেন্টের ১৪জনের দলের এক অন্যতম সদস্য এই মিডিফিল্ডার। খবর পেয়েই ডাক্তার বিধায়ক ডাঃখগেন্দ্র নাথ মাহাত শুভেচ্ছা জানাতে পৌছে যান তার বাড়িতে। আরো ভালো খেলার পরামর্শ দেন তিনি। খেলাধূল ভালো করে চালিয়ে নিয়ে যাওয়ার ক্ষেত্রে পাশে থাকার আশ্বাস দেন।

প্রত্যন্ত গ্রামের আদিবাসী পরিবারের মেয়ে মমতা হাঁসদা। পরিবারের ছোটো মেয়ে। দুই দিদি এক দাদা এবং মাকে নিয়ে পরিবার। বাবা নেই। ছোটো থেকেই রান্নবাটির বদলে ছেলেদের সাথে খেলতে পছন্দ করতো মমতা। একটু বড় হওয়ার পর ও ছেলেদের সাথেই ফুটবল খেলাটাকে বেছে নেয় সে। তার পর ই বর্তমান সরকারের খেলা ধূলার উপর বিশষ জোর দেওয়ায়, শুরু হয় জঙ্গল মহল কাপ। সরকারি এই টুর্নামেন্টই জীবন বদলে দেয় মমতার।

মহিলাদের টিমে সহজেই জায়গা করে নেয় মিডফিল্ডার মমতা। মুখ্যমন্ত্রীর কাছ থেকে বেষ্ট প্লেয়ার স্কুটিও উপহার পায় সে। এর পর আর পেছন ফিরে তাকাতে হয়নি। একের পর এক সুযোগ আসতে থাকে তার কাছে।আর তার যোগ্য প্রমানও দিতে থাকে মমতা। জুনিয়ার, আন্ডার নাইন্টিন এ ন্যাশেনাল, সুব্রত কাপ খেললেও ইন্ডিয়া টিমের সিনিয়ার প্লেয়ার হিসেবে ইন্টার ন্যাশেনালে সুযোগ এই প্রথম।

আর এই সুযোগ কেই কাজে লাগিয়ে আগামী দিনে আরো ভালো প্লেয়ার হওয়ার স্বপ্ন দেখছে মমতা। বর্তমান সরকারের খেলা প্রকল্প যে কতো প্রতিভার জন্মদিচ্ছে তার জ্বলন্ত উদাহরন সাকরাইলের এই মহিলা ফুটবল টিম। এখান থেকে একাধিক মেয়ে ভালো খেলে আরো বড়ো জায়গায় খেলার সুযোগ করে নিতে পারছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here