রাতবিরেতে দাঁতে ব্যথা! অব্যর্থ কিছু ঘরোয়া টোটকায় মিলবে উপশম

দাঁতে ব্যথা যে কী কষ্টকর তা ভূক্তভোগীরাই জানেন। এমন কোনও সময়ে, যেমন রাতবিরেতে,  যদি দাঁতে ব্যথা শুরু হয়, যখন চিকিৎসকের কাছে যাওয়ার সুযোগ থাকে না, তখন তো খুব সমস্যার মুখে পড়তে হয়। এমন পরিস্থিতিতে কয়েকটি ঘরোয়া টোটকা কিন্তু স্বস্তি এনে দিতে পারে।

দেখে নেওয়া যাক, এমনই কয়েকটি ঘরোয়া টোটকা।

নুন গরম জলে কুলকুচি

দাঁতের ব্যথা থেকে মুক্তির প্রথম উপায় হল, নুন গরম জলে কুলকুচি। নুন-জলে থাকে প্রাকৃতিক ডিসইফেকটেন্ট, যা দাঁতের ফাঁকে আটকে থাকা খাদ্যাবশেষ বা টুকরোকে সরিয়ে দিতে সহায়ক হয়। নুন-জলে কুলকুচি দাঁতের ব্যথা কমানোর পাশাপাশি ঘা-ও সারিয়ে তুলতে পারে। এজন্য আধ চামচ নুন এক গ্লাস জসে মিশিয়ে মাউথওয়াশ হিসেবে ব্যবহার করতে হবে।

হাইড্রোজেন পারঅক্সাইডে কুলকুচি

দাঁতের ব্যাথা কমানোর করার জন্য হাইড্রোজেন পার অক্সাইড দারুণ কাজের। চা চামচের এক চামচ হাইড্রোজেন পার অক্সাইড এক কাপ পরিমাণ জলে মিশিয়ে ৫-১০ মিনিট কুলকুচি করতে হবে।  হাইড্রোজেন পার অক্সাইড ব্যাটটেরিয়া বিনাশ করে, ময়লা কম করে। সেইসঙ্গে মাড়ি থেকে রক্তপড়াও আটকায়।  তবে এই মিশ্রন কোনওভাবেই গিলে ফেলা যাবে না। কুলকুটির পর সাধারণ জল দিয়ে মুখ ভালো করে ধুয়ে নিতে হবে। । এটি করলে দাঁতের ব্যথাতেও যেমন উপকার পাওয়া যায় তেমনি দাঁত সাদা করতেও দারুণ উপকারী। এটি দিনে ২ বার করতে পারেন।

রসুন

সেই সুপ্রাচীন কাল থেকেই শরীরের বিভিন্ন সমস্যার সমাধানে রসুনের বহুল ব্যবহার হয়ে আসছে। রসুনে দাঁতে ময়জা জমার কারণে তৈরি হওয়া ক্ষতিকারক ব্যাকটেরিয়াকে নিকেশ করার শক্তি রয়েছে। রসুন ব্যথা উপশমে সহায়ক হতে পারে। এজন্য রসুন দাঁতে করে চিবিয়ে পেস্ট করতে করে ব্যথার জায়গায় লাগাতে হবে। রসুন থেঁতলে নুন মিশিয়ে দাঁতে ব্যথার জায়গায় লাগালে উপকার পাওয়া যাবে। কয়েকটি রসুন চিবোলেও ব্যথার উপশম হতে পারে।

লবঙ্গ

দাঁতের ব্যথার উপশমে দীর্ঘকাল ধরেই লবঙ্গের ব্যবহার হয়ে আসছে। লবঙ্গ তেল কার্যকরীভাবে ব্যথার উপশম ঘটাতে পারে। লবঙ্গর তেলে ইউজেনল থাকে, যাতে প্রাকৃতিকভাবে অ্যান্টিসেপ্টিক গুণ থাকে। লবঙ্গের তেল থাকে তাহলে তুলো ভিজিয়ে দাঁতের গোড়ায় রেখে দিলে ব্যথার উপশম পাওয়া যায়। একটি  লবঙ্গ দাঁতের গোড়ায় রেখে দিলেও উপকার পাওয়া যেতে পারে। এছাড়াও লবঙ্গ তেল জলে দুফোঁটা মিশিয়ে মাউথওয়াশ হিসেবে ব্যবহার করা যেতে পারে।

পুদিনা চা

পিপারমিন্ট চা স্বস্তিদায়ক বলে পরিচিত। এর কুলিং প্রভাবও থাকে। এক কাপ পুদিনা চা দাঁত বা মাড়ির ব্যথার উপশমে কার্যকরী হতে পারে।

হলুদ

হলুদ শক্তিশালী অ্যান্টিসেপ্টিক ও অ্যান্টি ইনফ্লেমেটরি হিসেবে পরিচিত। তা ব্যথা ও ফোলাভাব দূর করতে সহায়ক। ব্যক্টেরিয়া নাশক হিসেবেও পরিচিত হলুদ। দাঁতে ব্যথা হলে হলুদ মেশানে এক গ্লাস দুধ খেতে পারেন বা হলুদের গুঁড়ো জল দিয়ে পেস্ট তৈরি মাড়িতে দিলে উপকার পাওয়া যায়।

আলু

এক টুকরো কাঁচা আলু কুচি করে কেটে  সামান্য থেঁতলে অল্প পরিমাণ নুন মিশিয়ে তা ব্যথার জায়গায় চেপে ধরে থাকলেও উপকার পাওয়া যেতে পারে।

লেবু

লেবুর রসও দাঁতের ব্যথা উপশমে সহায়ক। লেবু টুকরো করে দাঁতে ঘষতে থাকলে ব্যথা অনেকটা কম হবে।

পেঁয়াজ

যে দাঁতে ব্যথা হবে পেঁয়াজ টুকরো করে কেটে সেই দাঁত দিয়ে পেঁয়াজ চিবোলেও উপকার পাওয়া যাতে পারে। তা না পারলে পরিমাণ মতো পেঁয়াজ রস করে তা  দাঁতের গোঁড়ায় আস্তে আস্তে লাগালেও ব্যথার উপশম হতে পারে।

উল্লেখ্য, দাঁতের ব্যথা হলে সাময়িক উপশম পেলেও চিকিৎসকের পরামর্শ অবশ্যই নেওয়া উচিত।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

13 − 9 =