লোকাল ট্রেন চালু হলেও অসচেতনতার ছবি দেখেই কার্যত সিঁদুরে মেঘ দেখছে বিশেষজ্ঞরা

নিজস্ব সংবাদদাতা :: সংবাদ প্রবাহ :: দক্ষিন 24 পরগনা :: অপেক্ষার অবসান ঘটিয়ে দীর্ঘ ছমাস পর সাধারণ মানুষের জন্য চালু হলো লোকাল ট্রেন পরিষেবা। রাজ্য সরকারের এই সিদ্ধান্তে খুশি নিত্যযাত্রীরা। পূর্ব রেলের দক্ষিণ শাখার শিয়ালদহ, ডায়মন্ড হারবার, ক্যানিং, বারুইপুর, জয়নগর, কাকদ্বীপ সহ একাধিক স্টেশনে নিত্যযাত্রীদের ভীড় ও খুশি লক্ষ্য করা গিয়েছে। ৫০% যাত্রী নিয়ে লোকাল ট্রেন পরিষেবা চালু করার পর বিভিন্ন বাস স্টপ গুলিতে সেই মানুষের উপচে পড়া ভিড় আর লক্ষ্য করা গেল না। লোকাল ট্রেন পরিষেবা চালু হতেই বাসস্টপ গুলি কার্যত যাত্রী হীন হয়ে পড়ে।

স্বল্পমূল্যে কম সময়ের মধ্যে মানুষ নিজেদের গন্তব্যস্থলে পৌঁছানোর একমাত্র মাধ্যম হলো রেলপথ। লোকাল ট্রেন বন্ধ হওয়ার পর নিত্যযাত্রীরা নিজেদের কর্মস্থলে যোগ দেওয়ার জন্য একমাত্র সড়ক পরিবহন মাধ্যম এর উপর ভরসা করছিল । লোকাল ট্রেন পরিষেবা চালু হতে খুশি নিত্যযাত্রীরা। বিভিন্ন স্টেশন গুলিতে যেমন নিত্যযাত্রীদের ভীড় উপচে পড়েছে তেমনি যাত্রীদের মধ্যে অসচেতনতার সেই চেনা ছবি আবারো ধরা পড়েছে।

করোনা মহামারীর প্রকোপকে কার্যত তোয়াক্কা নাকরে নিত্যযাত্রীরা ঘুরে বেড়াচ্ছে রেলস্টেশনে। মানুষের মধ্যে এই অসচেতনতার ছবি দেখেই কার্যত সিঁদুরে মেঘ দেখছে বিশেষজ্ঞরা। বিশেষজ্ঞদের মতে পুজোর পরে যেভাবে রাজ্যে লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়ছে করোনা আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা তাতে বলা বাহুল্য রাখেনা যে কোরনার তৃতীয় ঢেউ আবারও আঘাত হানতে চলেছে রাজ্যে।

রেল কর্তৃপক্ষের পক্ষ থেকে সাধারণ মানুষকে মাস্ক এর ব্যবহার ও সামাজিক দূরত্ব বৃদ্ধি মেনে চলার কথা বললেও তাতে বিন্দুমাত্র কর্ণপাত করতে দেখা যাচ্ছেনা । নিত্যযাত্রীদের বহাল তবিয়তে স্টেশন চত্বরে মাস্কহীন ভাবে ট্রেনের জন্য অপেক্ষা করতে দেখা যাচ্ছে। এই জায়গা থেকেই বিশেষজ্ঞদের অনুমান যে সাধারণ মানুষ যদি না করোনা স্বাস্থ্যবিধি মানে তাহলে ভয়ানক পরিণাম অপেক্ষা করছে। রেল পুলিশের পক্ষ থেকে বারবার স্টেশনগুলোতে অভিযান চালিয়ে মাস্ক বিহীন যাত্রীদের ট্রেনে ওঠা ও স্টেশন সংলগ্ন এলাকায় উদ্দেশ্যহীনভাবে ঘোরাফেরার উপর যদিও নিষেধাজ্ঞা জারি করছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *