নিজস্ব সংবাদদাতা :: কাঁথি :: পূর্ব মেদিনীপুর :: সংবাদ প্রবাহ ::   প্রধানমন্ত্রী আবাস যোজনা প্রকল্পের বাড়ি তৈরির তালিকায় এক হাই স্কুলের শিক্ষিকা স্বামী নাম! তিনি শুধুমাত্র শিক্ষিকাও নয় তৃণমূল নেত্রীও বটে! বিজেপি নেএী থাকার পর কাঁথি পুর নির্বাচনে আগে তৃনমূলে যোগদান করেন। এই তালিকা প্রকাশ্যে আসার পর রীতিমতো শোরগোল পড়েছে পূর্ব মেদিনীপুর জেলার কাঁথি শহরে। গুঞ্জন উঠতে শুরু করেছে প্রত্যেক চায়ের দোকান থেকে বিভিন্ন আড্ডায়। কাঁথি পুরসভার পুরপ্রধান ও পুর প্রশাসকের স্বজনপোষণের অভিযোগ তুলেছেন বিরোধীরা। যদিও এই অভিযোগ পুরোপুরি নস্যাৎ করেছেন কাঁথি পুরসভা পুরপ্রধান সুবল মান্না। শিক্ষিকা এই দম্পতির মানসিকতাকে কটাক্ষ করেছেন সর্বস্তরের মানুষ৷ এই ধরনের প্রভাবশালী ব্যক্তির একাধিক নাম তালিকায় রয়েছে বলে দাবি বিরোধী থেকে কাঁথি শহরের বাসিন্দাদের। নেএী বা হাই স্কুল শিক্ষিকার পাশে নেই এলাকার কাউন্সিলর থেকে জনপ্রতিনিধি থেকে পুরপ্রধান। সূত্রের খবর, পূর্ব মেদিনীপুর জেলার কাঁথি ১৭ নং ওয়ার্ডে প্রধানমন্ত্রী আবাস যোজনা বাড়ি তৈরির তালিকায় নাম রয়েছে কাঁথি হিন্দু গার্লস স্কুলের ভূগোলের শিক্ষিকার মীরা মণ্ডলের স্বামী জয়দেব মণ্ডলের। বাড়ি তৈরির তালিকা জয়দেব মণ্ডলের নাম থাকার পর রীতিমতন কাঁথি শহর জুড়ে শুরু হয়েছে গুঞ্জন। হাই স্কুলের শিক্ষিকা হওয়া সত্ত্বেও কি করে তার স্বামী জয়দেব মণ্ডল সরকারি প্রকল্পে বাড়ি পেতে পারেন? তা নিয়ে উঠছে একাধিক প্রশ্ন? বস্তুত, কাঁথি হিন্দু গার্লস স্কুলের ভূগোলের শিক্ষিকার মীরা মণ্ডল। গত বিধানসভা নির্বাচনের আগে বিজেপি মহিলা মোর্চার নেত্রী ছিল। কিন্তু কাঁথি পুর নির্বাচনের সময় বিজেপি ছেড়ে তৃণমূলে যোগদান করেন। এদিকে আবারও মাীরা মণ্ডলের স্বামী জয়দেব মণ্ডল তৎকালীন সারদার চিটফাণ্ড মামলায় পুলিশ গ্রেফতার করে৷ আদালতের নির্দেশ ক্রমে জেলহাজতে থাকার পর শর্তসাপেক্ষে জামিন পান জয়দেব মণ্ডল। শুধু তাই নয় শিক্ষিকার বাড়ির নিচতলাতে ব্যাবসা করার জন্য এক ব্যক্তিকে ভাড়াও দেন। কাঁথি পুরসভা ১৭ নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর তথা বিজেপি নেতা তাপস কুমার দলাই বলেন ” বাড়ি তৈরির লিস্ট এটা আমার নয়। এরা প্রথমে দুয়ারে সরকারের আবেদন করেছিল, সেই লিস্ট! বাড়ি তৈরি তালিকা থাকলে আমরা তা খতিয়ে দেখবো৷ কেউ যদি চাকুরি করেন তার মেয়ে বা স্বামীর নাম দেয় সেটা আমি হতে দেবো না “।
শিক্ষক তথা তৃণমূল নেতা দুলাল রায় বলেন ” একজন হাই স্কুলের শিক্ষিকা হওয়ার সও্বেও বাড়ী নিচ্ছেন! সেটা কখনোও পাওয়া উচিত নয়! আমরা লিস্টটা দেখেছি “।
কাঁথি পুরসভা ১৭ নং ওয়ার্ডের তৃণমূল কংগ্রেসে ওয়ার্ড় কমিটির পক্ষে কমলেন্দু দাস বলেন ” আমরা বিষয়টি জানি না। কে বা কারা এই লিস্ট দিয়েছে আমরা তা জানি না। এই লিস্ট দেখে আমরা হতবাক শিক্ষিকা পরিবারের বাড়ি তৈরির লিস্টের নাম থাকা উচিত নয়। হাই স্কুলে শিক্ষাকা ও তিনতালা পাকা বাড়ি থাকা সত্ত্বেও আবার বাড়ি তৈরি তালিকার নাম? এই ঘটনায় তীব্র ধিক্কার জানাই “।বাড়ী প্রাপক শিক্ষিকা স্বামী জয়দেব মণ্ডল বলেন ” আমার স্ত্রী মীরা মণ্ডল কাঁথি হিন্দু গার্লস বালিকা বিদ্যালয়ে শিক্ষিকা স্বীকার করে নেন। আমার এডবেস্টারে বাড়ি। স্ত্রী শিক্ষিকা, কিন্তু লোন থাকার কারণে বাড়ি তৈরি করতে পারিনি। তাই আমি বাড়ি তৈরীর জন্য আবেদন করেছিলাম “। কাঁথি পুরসভা পুরপ্রধান সুবল কুমার মান্না বলেন ” হাই স্কুলের শিক্ষিকা হলে হয়েও যদি বাড়ি তৈরীর জন্য আপিল করে থাকেন তাহলে খুবই অন্যায় করেছেন। অবিলম্বে খতিয়ে দেখে তার নাম অবশ্যই বাদ দেওয়া হবে “।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here