সুন্দরবন বকখালি এলাকায় প্রশাসনের কড়া নজরদারি পরেও কি আদৌ আটকানো যাবে করোনা তৃতীয় ঢেউকে ?

সুদেষ্ণা মন্ডল :: সংবাদ প্রবাহ :: বকখালি :: কলকাতা লাগোয়া পর্যটক কেন্দ্র বকখালি। ডিসেম্বর মাস থেকেই বকখালি তে শুরু হয় পর্যটকদের আনাগোনা। গত দু’বছর করোনার সংক্রমনের জন্য ভাটা পড়েছিল বকখালি পর্যটক কেন্দ্রগুলিতে। কিন্তু এবছর কিছুটা হলেও করোনা সংক্রমনের গ্রাফ নিম্নমুখী ছিল ডিসেম্বর মাসের ২০ তারিখ পর্যন্ত। কিন্তু ছন্দ পতন হলো ডিসেম্বরের ২৫ তারিখ থেকে রাজ্যে বড়দিনের ছুটির আমেজে মেতেছিল আম বাঙালি।

বড়দিনের ছুটিতে রাজ্যের বিভিন্ন পর্যটক কেন্দ্র গুলোতে উপচে পড়া ভিড় লক্ষ্য করা গিয়েছিল। পর্যটকদের উপচেপড়া ভিড় এর হাত থেকে রেহাই পায়নি অন্যতম পর্যটক কেন্দ্র বকখালিও। বড়দিনের ছুটি কাটাতে রাজ্যের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে মানুষ ছুটে এসেছে বকখালিতে মেতে উঠেছে চড়ুইভাতির আমেজে। রাজ্যে যেভাবে লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়ছে করোনা সংক্রমণ। তাতে ইতিমধ্যেই চিন্তার ভাঁজ ফেলেছে রাজ্য সরকারের কপালে ।

স্বাস্থ্য দপ্তরের সূত্রে খবর গত এক সপ্তাহের মধ্যে রাজ্যে আছড়ে পড়বে করোনার তৃতীয় ঢেউ। রাজ্য সরকারের পক্ষ থেকে করোনার স্বাস্থ্যবিধির কথা মেনে চলার কথা বলা হচ্ছে। দক্ষিণ ২৪ পরগণা নামখানার বিভিন্ন পর্যটক কেন্দ্রগুলিতে করোনা সংক্রমণ রুখতে এবার কড়া পদক্ষেপ নিল ব্লক প্রশাসন।

নামখানা ব্লক প্রশাসন সূত্রে খবর, নামখানার ব্লকের মৌসুনি দ্বীপ, হেনরি আইল্যান্ড, বকখালি পর্যটন কেন্দ্র গুলি রাজ্যের অন্যতম পর্যটক আকর্ষণের মূল কেন্দ্রবিন্দু।

গত এক সপ্তাহ ধরে যেভাবে করোনা সংক্রমণ বৃদ্ধি পাচ্ছে রাজ্যে ইতিমধ্যেই উদ্বেগজনক। নামখানা বিডিও শান্তনু সিংহ ঠাকুর বলেন, বড়দিন থেকে পয়লা জানুয়ারি পর্যন্ত রাজ্যের অন্যতম পর্যটকদের আকর্ষণের কেন্দ্রবিন্দু বকখালি, মৌসুনি দ্বীপ , হেনরি আইল্যান্ডে পর্যটকদের উপচে পড়া ভিড় লক্ষ্য করা যায়।

করণা সংক্রমণ রুখতে ইতিমধ্যেই কড়া পদক্ষেপ নিয়েছে প্রশাসন প্রশাসনের পক্ষ থেকে প্রতিটি হোটেল মালিকদের সতর্ক করা হয়েছে যে ডাবল ডোজের ভ্যাকসিনেশনের সার্টিফিকেট ছাড়া কোন পর্যটকদের হোটেলের ঢোকার অনুমতি দেওয়া যাবে না।

বকখালি সৈকত ও নামখানা বিভিন্ন জায়গায় আর্টিফিশিয়ালি করণা টেস্টের জন্য সেন্টার খোলা হয়েছে। বকখালি শহর নামখানা বিভিন্ন পর্যটক কেন্দ্র গুলিতে পুলিশ ও প্রশাসনের যৌথ উদ্যোগে পর্যটকদের মাস্ক ব্যবহার করার জন্য মাইকিং এর মাধ্যমে প্রচার চালানো হচ্ছে। মাস্ক ছাড়া পর্যটকদের সমুদ্র সৈকতে ভ্রমন করার ওপরও জারি করা হয়েছে নিষেধাজ্ঞা।প্রশাসনের কড়া নজরদারি পরেও কি আদৌ আটকানো যাবে করোনা তৃতীয় ঢেউকে প্রশ্ন তুলছে বিশেষজ্ঞরা।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

9 + 1 =