নিজস্ব সংবাদদাতা :: সংবাদ প্রবাহ :: বীরভুম :: শিখ ধর্মের প্রবর্তক গুরু নানকের আজ জন্মদিন। প্রতিবছর এই দিনটাই তাঁর জন্মদিন হিসেবে বিশ্বজুড়ে পালিত হয়। গুরু নানকের জন্মদিনেই গুরু পূরব নামে পবিত্র উৎসব পালিত হয়। যেখানে সারা বিশ্বের শিখ ধর্মের মানুষরা তাঁদের গুরুর প্রতি শ্রদ্ধাজ্ঞাপন করেন। তাই আজ বীরভূম জেলার দুবরাজপুর পৌরসভার ৯ নম্বর ওয়ার্ডের সাতকেন্দুরি মোড়ে অবস্থিত গুরুদুয়ারার সেবকদের দুবরাজপুর থানার ওসি আফরোজ হোসেন মিষ্টি ও পুষ্পস্তবক দিয়ে সম্মাননা জানান।

এদিন সকাল থেকে গুরুদুয়ারায় বিশেষ প্রার্থনা হয়। জানা যায়, এই গুরুদুয়ারা ১৯৮৬ সালে তৈরি হয়। এই এলাকায় শিখ সম্প্রদায়ের ২০ টি পরিবার রয়েছে। বীরভূম জেলায় দুটি মাত্র গুরুদুয়ারা রয়েছে- একটি দুবরাজপুরের সাতকেন্দুরিতে এবং আর একটি রয়েছে জয়দেবে।

উল্লেখ্য, ১৪৬৯ সালে কার্তিক পূর্ণিমাতে গুরু নানক দেব লাহোরের কাছে জন্মগ্রহণ করেন। যা তৎকালীন ভারতে অবস্থিত ছিল। গুরু নানক জয়ন্তী পালনের দিনটি পালিত হয় হিন্দু পঞ্জিকা অনুসারে কার্তিক পূর্ণিমায় অর্থাৎ কার্তিক মাসের পূর্ণিমা তিথিতে। তিনদিন ব্যাপী এই উৎসব শিখদের পবিত্র গ্রন্থ গুরু গ্রন্থসাহিব পাঠের মাধ্যমে সূচনা হয়। এই গ্রন্থসাহিব পাঠ করা হয় একটানা ৪৮ ঘন্টা ধরে। একে অখন্ড পাঠ বলে। গুরু নানক জয়ন্তীর আগের দিনে এই পাঠ সমাপ্ত করা হয়।

তারপর প্রভাত ফেরির আয়োজন করা হয়। এই প্রভাত ফেরি গুরুদুয়ারা থেকে শুরু হয়ে বিভিন্ন লোকালয়ের দিকে যায়। মিছিলের আগে আগে পাঁচ জন সশস্ত্র রক্ষী নিশান সাহিব পতাকা বহন করে নিয়ে যায়। তারা একটি পালকিও বহন করে নিয়ে চলে যার মধ্যে থাকে ফুল দিয়ে সুসজ্জিত গুরু গ্রন্থ সাহিব। মিছিলে অংশগ্রহনকারীরা ধর্মীয় গান গাইতে গাইতে এগিয়ে চলেন। দুপুরে গুরুদুয়ারায় উপস্থিত লোকজনদের লঙ্গরখানায় বিশেষ খাবার পরিবেশন করা হয় বলে জানান দুবরাজপুরের গুরুদুয়ারার সেবক শুকদেব সিং।